প্রচ্ছদ সারাদেশ স্ত্রীকে খুশি করতে সত্য গোপনের অবকাশ রয়েছেঃ মামুনুল হক

স্ত্রীকে খুশি করতে সত্য গোপনের অবকাশ রয়েছেঃ মামুনুল হক

by Good News
স্ত্রীকে খুশি করতে সত্য গোপনের অবকাশ রয়েছেঃ মামুনুল হক

সাম্প্রতিক সময়ের আলোচিত হেফাজতে ইসলাম এর নেতা মামুনুল হক আজ বৃহস্পতিবার তার ফেসবুক এ্যাকাউন্ট থেকে লাইভে এসে বলেছেন, “স্ত্রীকে সন্তুষ্ট করতে, স্ত্রীকে খুশি করতে প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে সীমিত পরিসরে কোনো সত্যকে গোপন করারও অবকাশ রয়েছে।”

চলতি এপ্রিলের ০৩ তারিখ নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে রয়্যাল রিসোর্টে একজন নারীর সঙ্গে অবস্থান কালে স্থানীয় ছাত্রলীগ ও যুবলীগে নেতারা মামুনুল হক কে ঘেরাও করে সাথে থাকা নারীর পরিচয় জানতে চায়। তখন তিনি দাবী করেন সাথে থাকানারী তার ২য় স্ত্রী। গত দুই বছর আগে তিনি বিয়ে করেছেন। তবে বেশ কয়েকটি ফাঁস হওয়া ফোনরেকড সূত্রে জানা যায়, মামুনুল হকের দ্বিতীয় বিয়ের বিষয়টি তার প্রথম স্ত্রী জানতেন না। এছাড়াও আরেকটা বিষয় হলো ঐ রিসোর্টে স্ত্রীর নাম সঠিক বলেননি মামুনুল এতে বিভান্তি আরু বেড়ে যায় তার মিথ্যা তথ্যের জেরে বাংলাদেশের ফেসবুক নিউজ এখন মামুনুলময় দিনরাত চলছে পক্ষ বিপক্ষের কমেন্ট পাল্টা কমেন্ট।

নাঃগঞ্জের ঐ ঘটনার ০৫ পাঁচ দিন পর আজ মামুনুল ফেসবুক লাইভে এসে যা বলেছেন তা আপনাদের সুবিধার জন্য তুলে ধরা হলোঃ” আমি একাধিক বিয়ে করেছি:। তিনি দাবি করেন, ইসলামি শরিয়ত অনুযায়ী ও বাংলাদেশের আইনে একাধিক বিয়ের ক্ষেত্রে কোনো বাধা নেই। নিজের বহু বিয়ের কথা উল্লেখ্য করে মামুনুল হক বলেন, একজন পুরুষ ০৪ চারটি বিয়ে করতে পারে। এসময় তিনি বলেন, চারটি বিয়ে করলে কার কী?

মামুনুল হক হলেন, (হেফাজতের ঢাকা মহানগর শাখার সাধারণ সম্পাদক) এবং (খেলাফত মজলিসের মহাসচিব)। নাঃগঞ্জে রয়্যাল রিসোর্টে মামুনুল ঘেরাও থাকার সময় ঐএলাকার হেফাজতে ইসলামের নেতা-কর্মীগণ রয়েল রিসোটে ব্যাপক ভাঙচুর চালায়। এরপরে মামুনুল হককে তারা ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

সেদিনের ঐ ঘটনার পরে পুলিশ বাদী হয়ে দুটি মামলা করেছে বলে জানা গেছে, এবং একটি মামলায় মামুনুল হককেও আসামি করা হয়েছে। অন্যদিকে মামুনুলের পক্ষ থেকে দলীয় এক নেতা ঘটনার পরের দিন থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। যদিও সেটি মামলা হিসেবে গ্রহণ করা হয়নি।

গতকাল বুধবারে মামুনুল লাইভে এসে বলেন, “যাঁরা তাঁর ব্যক্তিগত আলাপ, কথা জনসম্মুখে এনেছেন, মামুনুল হক তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যক্তিগত গোপনীয়তা লঙ্ঘনের অভিযোগে এনে মামলা করবেন। এসময় মামুনুল আরও বলেন, ঐ দিন অসাবধানতা ও নিজস্ব নিরাপত্তা না নিয়েই রয়্যাল রিসোর্টে ঘুরতে যাওয়া তাঁর উচিত হয়নি। ব্যক্তিগত অসাবধানতা ও পদক্ষেপ না নেওয়ায় তিনি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন।

মামুনুল হক ওই দিনের ঘটনার জন্য পুলিশকে দায়ী করেন। এ ছাড়া স্থানীয় ক্ষমতাসীন দলের নেতা–কর্মীদেরও দায়ী করেন। তিনি বলেন, যাদের কারণে এমন হয়েছে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না।

লাইভে মামুনুল হক নিজের ও রফিকুল ইসলাম মাদানী শিশুবক্তার কথা উল্লেখ করে বলেন, সরকার মানুষের চরিত্র হননের কাপুরুষোচিত পন্থা অবলম্বন করেছেন। এতে করে কেউই সম্মান নিয়ে চলতে পারবে না। এর প্রতিবাদ করতে তিনি সবার প্রতি আহ্বান জানান।

মামুনুল হকের ফেসবুক লাইভটি এখান থেকে শুনতে পারেন-

সারাদেশ থেকে আরও পড়ুন

আপনার পছন্দের আরও

Leave a Comment

error: Content is protected !!